বুধবার, মে ২৫, ২০২২ || ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

করোনার চতুর্থ ঢেউ রুখতে এই ওষুধটিকেই গেমচেঞ্জার বলছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

করোনার চতুর্থ ঢেউ রুখতে এই ওষুধটিকেই গেমচেঞ্জার বলছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

করোনার সঙ্গে লড়াই করছে গোটা বিশ্ব। দেশের বেশ কয়েকটি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে নতুন করে কোভিড (Corona) সংক্রমণের বৃদ্ধি লক্ষ্য করা গিয়েছে। এখন বিভিন্ন স্কুল-কলেজ অফিস সব কিছুই খুলে গিয়েছে। এর পাশাপাশি মাস্কের ব্যবহার তুলে নেওয়ায় সংক্রমণ বাড়ছে। কেউ কেউ হয়তো ভাবছেন, আর সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা নেই। এর ফলে মাস্কের ব্যবহারও বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। সংক্রমিতের সংস্পর্শে এসে সংক্রমিত হচ্ছেন।

এই সংক্রমণের হাত থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য বাজারে টিকা এসেছে বটে, তবে কোভিড মুক্তির জন্য নির্দিষ্ট কোনও ক্যাপসুল বা ট্যাবলেট এতদিন পর্যন্ত ছিল না। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) শুক্রবার ফাইজারের কোভিড অ্যান্টিভাইরাল ক্যাপসুল বা ট্যাবলেট জন্য সুপারিশ করে। এই ট্যাবলেট তৈরি করেছে মার্ক এবং রিজব্যাক বায়োথ্যারাপিউটিকস সংস্থা। মৃদু এবং মাঝারি উপসর্গ বিশিষ্ট করোনা রোগীদের জন্য এই পিল ভালো কাজ করবে। WHO রেমডিসিভির পর Molnupiravir-কেও ভালো বলেছে। WHO-এর মতে এই ওষুধ করোনা রোগীর হাসপাতালে ভর্তির সম্ভাবনা অনেকটাই কমিয়ে দেবে।

কেন এই ওষুধের সুপারিশ করা হয়েছে?

করোনা টিকা বাজারে এলেও নিত্যনতুন যে ভ্যারিয়্যান্টের হদিশ পাওয়া যাচ্ছে তার ফলে চিন্তার মেঘ কিছুতেই কাটছে না। ফলে করোনা আক্রান্তদের দ্রুত সুস্থ করার জন্য নির্দিষ্ট ওষুধের প্রয়োজন বলে মনে করছে WHO। ফলে এই ওষুধ করোনা নিয়ন্ত্রণে অনেকটাই কাজ করবে বলে আশাবাদী WHO বিশেষজ্ঞরা। এর জন্য দুটো ট্রায়াল নেওয়া হয়েছে। গবেষণার ভিত্তিতে জানা গিয়েছে যে Paxlovid হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার ঝুঁকি কমাতে পা ৮৫%। মোট ৩,১০০ রোগীর উপর এই গবেষণায় জড়িত ছিলেন।

​কী ভাবে এটি কাজ করবে?

অ্যান্টিভাইরাল এই পিলের মেয়াদ খুব সীমিত। এর কারণেই সংক্রমণের প্রাথমিক পর্যায়ে এটি নেওয়া উচিত।

প্যাক্সলোভিড কীভাবে কাজ করে সে সম্পর্কে ইয়েল মেডিসিনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, “যখন আপনি আপনার তিনটি পিলের ডোজ গ্রহণ করছেন, তখন সেই ওষুধের মধ্যে দুটি হবে নির্মাট্রেলভির, যে ওষুধটি SARS-CoV-2 প্রোটিনকে প্রতিলিপি হতে বাধা দেয়। অন্যটি হল রিটোনাভির, যা এইচআইভি/এইডসের চিকিৎসার জন্য ব্যবহার করা হতো এক সময়। কিন্তু এখন অ্যান্টিভাইরাল ওষুধের মাত্রা বাড়াতে ব্যবহার করা হয়। কোভিড-১৯ চিকিৎসা হিসেবে, রিটোনাভির মূলত লিভারে নির্মাট্রেলভিরের বিপাক বন্ধ করে দেয়, যাতে এটি দ্রুত আপনার শরীর থেকে সরে না যায়, যার অর্থ এটি দীর্ঘ সময় কাজ করতে পারে – এটি সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সহায়তা করে।”

​কারা এই অ্যান্টিভাইরাল ওষুধ খেতে পারেন?

WHO বলছে এই ওষুধ যারা টিকা নেয়নি বা কেবলমাত্র উপসর্গ দেখা গিয়েছে এমন রোগীদের জন্য এটি বিশেষভাবে কার্যকরী। কিন্তু এই ওষুধ শিশুদের অর্থাৎ যাদের বয়স ১৮ বছরের কম, গর্ভবতী এবং যে মায়েরা সন্তানদের স্তন পান করান তাঁদের ক্ষেত্রে এই ওষুধের ব্যবহার করা উচিত নয়।

​কেমন করে প্রয়োগ করা হবে এই পিল?

WHo-এর মতে রোগীদের প্রাথমিক কিছু লক্ষণ দেখা গলে পাঁচ দিনের ৬টি ট্যাবলেট খেতে হবে। Paxlovid Pills কোর্সটি পাঁচ দিন স্থায়ী রাখা হয়। ওষুধটি কিনে বাড়ি নিয়ে যাওয়া যাবে। চিকিৎসকের পরামর্শ মতো করা যাবে ব্যবহারও।

​ওমিক্রনের বিরুদ্ধে এটি রুখে দাঁড়াতে পারে?

ওমিক্রন স্ট্রেইন বেড়ে যাওয়ার আগে প্যাক্সলোভিডের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল করা হয়েছিল। ১৮ জানুয়ারী, ২০২২-এ Pfizer-এর অফিসিয়াল বিবৃতি অনুসারে, এই পিলটি Omicron-এর বিরুদ্ধে কার্যকরভাবে কাজ করে। লক্ষণ শুরু হওয়ার পাঁচ দিনের মধ্যে চিকিত্সা করা হলে করোনা আক্রান্ত রোগীর হাসপাতালে ভর্তি বা মৃত্যুর ঝুঁকি প্রায় ৯০% কমিয়ে দেয়।

​এই ওষুধের কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আছে?

রিপোর্ট অনুযায়ী Paxlovid-এর সঙ্গে যুক্ত সাধারণ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হল রুচিবোধ, ডায়রিয়া, রক্তচাপ বৃদ্ধি এবং পেশীতে ব্যথা।

শেয়ার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  
© ২০২২ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত লাইট অফ টাইমস
Design & Developed By Eng.Md.Abu Sayed