Main Menu

রবিবার, মে ২nd, ২০২১

 

ভারতে গণতন্ত্রের বিজয় হোক: তথ্যমন্ত্রী

ভারতের নির্বাচনে সবসময় গণতন্ত্রের বিজয়ের প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। তিনি আজ দুপুরে রাজধানীর মিন্টু রোডের বাসভবনে সীমিত পরিসরে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে ভারতের চলমান বিধানসভা নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল তৃণমূল কংগ্রেসের এগিয়ে থাকার বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে একথা বলেন। ‘পশ্চিমবঙ্গ বা ভারতের যে কোনো নির্বাচন সম্পূর্ণ তাদের আভ্যন্তরীণ বিষয়’ উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘যারাই ভারতে সরকার গঠন করুন, বাংলাদেশের সাথে ভারতের যে সৌহার্দপূর্ণ সম্পর্ক ও পাশের পশ্চিমবঙ্গের সাথে যে নৈকট্য, তা যেনো আরো গভীরে প্রোথিত হয় এবং আমাদেরআরও পড়ুন


হেরে গিয়েও মুখ্যমন্ত্রী হতে পারবেন মমতা?

মমতা বন্দোপাধ্যায়। পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচন ঘিরে উত্তাপের কমতি ছিল না। সবশেষ রঙ্গমঞ্চ জমে উঠে নন্দীগ্রামকে ঘিরে। তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের সাথে রুদ্ধশ্বাস লড়াই দল বদল করে বিজেপির টিকিট কাটা শুভেন্দু অধিকারীর। প্রাথমিকভাবে তৃণমূল নেত্রী জিতেছেন বলে খবর ছড়ালেও, গণনা শেষে দেখা যায় জয়ী হয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী। মমতাকে দেড় হাজারের বেশি ভোটে হারিয়েছেন তিনি। এই পরিস্থিতিতে প্রশ্ন ওঠে, তাহলে কি তৃতীয়বারের মতো মুখ্যমন্ত্রী হতে পারবেন না মমতা? এ বিষয়ে কী বলছে ভারতীয় সংবিধান? ভারতের সংবিধান বলছে, দেশের কোনও রাজ্যে মুখ্যমন্ত্রী পদে বসার জন্য এই যোগ্যতাগুলি প্রয়োজন- ভারতের নাগরিক হতে হবে। রাজ্যআরও পড়ুন


নিজের আসন নন্দীগ্রামে হেরে গেলেন মমতা

নন্দীগ্রাম নিয়ে চরম বিভ্রান্তি। ১৭ রাউন্ড ভোটগণনার পর তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সেখানে জয়ী হয়েছেন বলে খবর আসছিল। কিন্তু সন্ধ্যা গড়াতে মমতার জয় নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে। বলা হয়, সার্ভারে সমস্যার জেরে সঠিক ভাবে কিছু জানা যাচ্ছে না। তার পরেই ১৬২২ ভোটে শুভেন্দু অধিকারীর জয়ের খবর আসে। এ নিয়ে যোগাযোগ করা হলে আনন্দবাজারকে শুভেন্দু বলেন, ‘‘১৬২২ ভোটে জিতেছি আমি।’’ যদিও পোস্টাল ব্যালট ছাড়া মমতার সঙ্গে শুভেন্দুর জয়ের ব্যবধান ৯৭৮৭ ভোটের। তার পর সাংবাদিক বৈঠকে নন্দীগ্রামে হেরে গিয়েছেন বলে জানান মমতা।  তিনি বলেন, ‘‘নন্দীগ্রাম যা রায় দেবে, মাথা পেতে নেব।’’ এরআরও পড়ুন


পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচনে একেবারে নিশ্চিহ্ন বামেরা!

ছবি: আনন্দবাজার পত্রিকা ৩৪ বছরের বাম শাসনের পর এই প্রথম পশ্চিমবঙ্গের মানুষ দেখতে চলেছেন বামপন্থীবিহীন রাজ্য বিধানসভা। যেখানে সিপিএম-সহ রাজ্যের বামপন্থী দলগুলির কোনও নির্বাচিত প্রতিনিধিই থাকবেন না। আর সেটা হলো বহু দিন পর রাজ্যের বামপন্থী রাজনীতিতে একঝাঁক তরুণ মুখ আসার পরেও। বিধানসভায় প্রতিনিধিত্ব থাকবে না বামপন্থীদের নিয়ে গড়া সংযুক্ত মোর্চার আর এক বড় শরিক কংগ্রেসেরও। এবার বিধানসভা ভোটের ফলাফলে তাদের ঝুলিও শূন্য। পশ্চিমবঙ্গে দীর্ঘ দিনের বামপন্থী আন্দোলনের পরম্পরা এবং তার পর দুটি যুক্তফ্রন্ট সরকারে বামপন্থীদের প্রতিনিধিত্ব, কখনও বা কর্তৃত্ব আর সবশেষে ১৯৭০-এর দশক থেকে একটানা বাম-রাজত্বের পর পশ্চিমবঙ্গের মানুষ এবারআরও পড়ুন


টাইমস হায়ার এডুকেশনের ইমপ্যাক্ট র‌্যাংকিংয়ে বাংলাদেশের মধ্যে চতুর্থ ইউল্যাব

টাইমস হায়ার এডুকেশনের ইমপ্যাক্ট র‌্যাংকিংয়ে বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে চতুর্থ স্থানে রয়েছে ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশ (ইউল্যাব)। এ বছর টাইমস হায়ার এডুকেশন যে ১,১১৫টি বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকা প্রকাশ করেছে, তাতে বাংলাদেশের সাতটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় স্থান পেয়েছে। বিজ্ঞাপন জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) বাস্তবায়নে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর গবেষণা, স্টুয়ার্ডশিপ, আউটরিচ ও শিক্ষণ প্রক্রিয়ার প্রভাব বিবেচনা করে এই তালিকা প্রকাশ করা হয়। এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ইউল্যাব জানায়, এবারই বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রথমবার এই র‌্যাংকিং প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করেছে। এই বিষয়ে ইউল্যাবের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক সামসাদ মর্তুজা বলেন, শিক্ষক, শিক্ষার্থীরা কীভাবে সমাজে ইতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে, তা দেখার জন্যআরও পড়ুন