Main Menu

শুক্রবার, মার্চ ২০th, ২০২০

 

হাঁচি-কাশির সময় তালু নয়, বাহু দিয়ে নাক, মুখ ঢাকুন

লাইফ স্টাইল ডেস্কঃ ‘কোভিড-১৯’ ভাইরাসের সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচতে হাঁচি, কাশির সময় তালু নয়, বাহু (‘আর্ম’) দিয়েই নাক, মুখ ঢাকা উচিত। করোনার সংক্রমণ এড়ানোর জন্য এটাই অন্যতম সহজ আর বাস্তবসম্মত উপায়। কিন্তু কেন হাতের তালুর পরিবর্তে বাহু দিয়ে নাক, মুখ ঢাকতে বলা হচ্ছে? সাধারণত হাঁচি-কাশির সময়ে আমরা হাতের তালুকেই ব্যবহার করি থাকি। ফলে হাঁচির সময় মুখ থেকে বেরিয়ে আসে বিন্দু আকারে জলজাতীয় কফ। ওতেই থাকে লক্ষ কোটি জীবাণু। ফলে, সেই ড্রপলেটসে যদি কোভিড-১৯-এর ভাইরাস থাকে, তা হলে তা সহজেই বাতাসে মিশতে পারে। এর পরিবর্তে যদি বাহুর ব্যবহার হয়, তবে সেইআরও পড়ুন


জ্বর ও ঠাণ্ডা-কাশির রোগী হাসপাতালে রোগী ভর্তি দেয়া হয় না!

স্টাফ রিপোর্টারঃ রাজধানীর মুগদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে জ্বর-সর্দির চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের ফিরিয়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। রোগীদের বলা হচ্ছে শনিবার আসবেন। কাউকে আইইডিসিআরের হটলাইন নাম্বার দেখিয়ে বিদায় করা হচ্ছে। বৃহস্পতিবার হাসপাতাল প্রাঙ্গণে কমপক্ষে ৬-৭ জন রোগীর স্বজনরা এমন অভিযোগ করেন। এ সময় হাসপাতালের ভেতরে জরুরি বিভাগে বসা রিসেপশনিস্টের চেয়ারে বসা পারভেজ ও সাইমন রোগী ও স্বজনদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করার কথাও বলেন রোগী ও তাদের স্বজনরা। সরেজমিন হাসপাতালে দেখা গেছে, হামিদুল তার সাড়ে ৩ বছরের শিশু ছেলে হোসাইন ও আরেক শিশুর পিতা হাসিজুম শেখ তার ৫ বছরের শিশু মেয়ে হাবিবাকেআরও পড়ুন


হে আল্লাহ! মুসলিম উম্মাহকে সব ধরনের মহামারি থেকে হেফাজত করুন

ধর্ম ডেস্কঃ মসজিদে হারাম ও মসজিদে নববির প্রধান ইমাম শায়খ ড. আব্দুর রহমান সুদাইসি। সম্প্রতি করোনাভাইরাস আতঙ্কে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মসজিদে নামাজ আদায় নিষিদ্ধ এবং কাবা শরিফ ও মসজিদে নববি মুসল্লিদের না আসতে বাধ্য করায় আগেবপ্রবণ হয়ে পড়েন তিনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে তার আবেগমাখা প্রার্থনা সবার হৃদয়কে নাড়া দিয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ টুইটারে তিনি উল্লেখ করেন : হে আল্লাহ! আপনার ঘর থেকে আমাদের বিচ্ছিন্ন করবেন না। – হে আল্লাহ! আমাদের পাপের কারণে পবিত্র মসজিদের নামাজের জামাআত থেকে বঞ্চিত করবেন না। – হে আল্লাহ! আপনার কাছে আমাদের আবার ফিরিয়ে নিন। –আরও পড়ুন


করোনায় মৃতের সংখ্যা চীনকে ছাড়িয়ে গেলো ইতালি

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ করোনা ভাইরাসে ইতালিতে মৃতের সংখ্যা চীনকে ছাড়িয়ে গেছে। ইউরোপের দেশটিতে বৃহস্পতিবারই ৪২৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। সংবাদ সংস্থা রয়টার্স বলছে, এই সংখ্যা নিয়ে ইতালিতে মৃতের সংখ্যা পৌঁছেছে তিন হাজার ৪০৫ জনে। আর বৃহস্পতিবার পর্যন্ত চীনে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে তিন হাজার ২৪৫ জন। চীনের উহান শহরে প্রথম এই করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটে। তবে চীনে পরিস্থিতির উন্নতি ঘটলেও বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে ইতালি। দেশটিতে সব ধরনের জনসমাগম নিষিদ্ধ, দোকান-পাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, স্কুল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। পুরো দেশকে কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে। তারপরেও বেড়েই চলছে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা সব মিলিয়ে বিশ্বেআরও পড়ুন


করোনা সন্দেহে চিকিৎসকের অবহেলায় রোগীর মৃত্যু

খুলনা ব্যুরোঃ পাঁচ দিন ধরে জ্বরে ভুগছিলেন বাগেরহাটের মোংলা উপজেলার জয় বাংলা গ্রামের বাসিন্দা বাবুল (৪০)। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিয়েও অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় বৃহস্পতিবার দুপুরে তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে ঘণ্টাখানেক পর বাবুলের মৃত্যু হয়। পরিবারের অভিযোগ- এই সময়টা তারা হাসপাতালের বহির্বিভাগ এবং জরুরি বিভাগে দৌড়াদৌড়িতেই পার করেছেন। করোনা সন্দেহে কোনো ডাক্তারই তাকে চিকিৎসার জন্য এগিয়ে আসেননি। যার কারণে বাবুলের মৃত্যু হয়েছে। বাবুলের বড় বোন জাহানারা বেগম বলেন, শুক্রবার থেকে বাবুল জ্বরে ভুগছিল। প্রথমে তাকে মোংলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেয়া হয়। এতে জ্বর কমেনি।আরও পড়ুন