Main Menu

মঙ্গলবার, জানুয়ারী ৭th, ২০২০

 

আমাকে এখনো মানুষ এত ভালোবাসে কেন?

বিনোদন ডেস্কঃ গত ২৭ ডিসেম্বর চলচ্চিত্রের কিংবদন্তী অভিনেত্রী শাবানা দুই বছর পর যুক্তরাষ্ট্র থেকে স্বামী ওয়াহিদ সাদিককে নিয়ে পারিবারিক কাজে দেশে এসেছেন। আগামী সপ্তাহে আবার ফিরে যাবেন। প্রায়ই তিনি দেশে আসেন। কিছুদিন থেকে আবার ফিরে যান। শাবানা অভিনয় ছেড়েছেন প্রায় দেড় যুগ আগে। তবে মানুষ তাকে এখনো মনে রেখেছে। রাস্তায় দেখলে মানুষজন তাকে চিনে, খোঁজখবর নেয়। ভক্তদের এই ভালোবাসায় তিনি আবেগাপ্লুত হন। শাবানা বলেন, প্রতিদিন ভোরে যখন মর্নিংওয়াকে বের হই, লোকজন আমাকে দেখে কাছে আসেন, খোঁজ-খবর নেন। সেদিন আমি পার্কে হাঁটছি, একটা মেয়ে এসে বলল, যদি কিছু মনে না করেনআরও পড়ুন


জি কে শামীমের ১৯৪ ব্যাংক হিসাব জব্দ

আইন-আদালত ডেস্কঃ দুর্নীতি ও অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে গ্রেফতার আলোচিত ঠিকাদার এস এম গোলাম কিবরিয়া শামীম ওরফে জি কে শামীম এবং তার সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের ১৯৪টি ব্যাংক হিসাব অবরুদ্ধের আদেশ দিয়েছে আদালত। সোমবার (৬ জানুয়ারি) মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আবু সাঈদ জিকে শামীমের বিরুদ্ধে গুলশান থানায় করা মানি লন্ডারিং আইনের মামলায় তার ব্যাংক হিসাব ফ্রিজের আবেদন করেন। ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কেএম ইমরুল কায়েশ আবেদনটি মঞ্জুর করেন। আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর তাপস কুমার পাল বিষয়টি নিশ্চিত করেন। উল্লেখ্য, গত বছরের ২০ সেপ্টেম্বর সাত সশস্ত্র দেহরক্ষীসহআরও পড়ুন


ফেলানী হত্যার ৯ বছর আজ

স্টাফ রিপোর্টারঃ বহুল আলোচিত ফেলানী খাতুন হত্যার ৯ বছর পূর্তি আজ। দীর্ঘসূত্রিতার মধ্যদিয়ে ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টে চলছে তার বিচারিক কার্যক্রম। ২০১১ সালের এই দিনে ভারতীয় বিএসএফ’র গুলিতে নির্মম হত্যার শিকার ফেলানীর মৃতদেহ কাটাতারে ঝুলে ছিল দীর্ঘ সাড়ে ৪ ঘন্টা। প্রতিবাদী হয়ে উঠেছিল গণমাধ্যমসহ বিশ^ মানবাধিকার সংস্থাগুলো। তীব্র সমালোচনার মুখে পরতে হয় ভারতকে। ফেলানীর পরিবার এখনো বুক বেঁধে আছে ন্যায় বিচারের আশায়। জানা যায়, কাজের সন্ধানে অবৈধভাবে মেয়েকে নিয়ে ভারতে পারি জমিয়েছিল ফেলানী খাতুন ও তার বাবা নুরুল ইসলাম নুরু। সেখানে কয়েক বছর থাকার পর কিশোরী মেয়েকে নিজ দেশে বিয়ের উদ্দেশ্যেআরও পড়ুন


পঞ্চগড়ে ধর্ষণের শিকার হয়ে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা

পঞ্চগড় প্রতিনিধিঃ পঞ্চগড় জেলার সদর উপজেলার গরিণাবাড়ি ইউনিয়নের মন্নাপাড়া এলাকায় মরিয়ম খাতুন (১৩) নামে ৬ষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়েছে। এর কিছুক্ষণ পরেই লোক লজ্জায় মেয়েটি আত্মহত্যা করে। সে ভাটাপুকুরি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল। ধর্ষণে অভিযুক্ত পলাশকে (২০) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মামলার এজাহারে বলা হয়, সোমবার ভোররাতে পঞ্চগড় সদর উপজেলার গরিণাবাড়ি ইউনিয়নের মোন্নাপাড়া গ্রামের আজিত আলীর ছেলে পলাশ ঐ এলাকার মৃত মজিবর রহমানের মেয়ে মরিয়মকে ধর্ষণ করে। মরিয়মের মা মর্জিনা বেওয়া ভোরবেলা নামাজ পড়তে ওঠার সময় এই ঘটনা দেখে ফেলে পলাশকে জাপটে ধরেন। কিন্তু তাকে ধাক্কা দিয়েআরও পড়ুন


ঢাবি ছাত্রীকে ‘তুলে নিয়ে ধর্ষণ’, ক্ষোভে উত্তাল ক্যাম্পাস

স্টাফ রিপোর্টারঃ সংলগ্ন আর্মি গল্ফ গার্ডেনের সামনে বিমানবন্দর সড়ক প্রায় দুই ঘণ্টা অবরোধ করে রাখে। রবিবার রাতে ধর্ষণের শিকার শিক্ষার্থী ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ভর্তি আছেন। চিকিত্সাধীন শিক্ষার্থীকে দেখতে গিয়ে ঢাবি উপাচার্য ও উপ-উপাচার্য ধর্ষকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন। গতকাল সকালে ঐ ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে ক্যান্টনমেন্ট থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় অজ্ঞাত ৩০-৩৫ বছরের এক যুবককে আসামি করেছেন। সিআইডির ক্রাইম সিন বিভাগ ঘটনাস্থল থেকে বেশ কিছু আলামত সংগ্রহ করেছে। ঐ ছাত্রীর চিকিত্সায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করেছে। স্বাস্থ্য পরীক্ষার পরআরও পড়ুন