Main Menu

শনিবার, অগাস্ট ১১th, ২০১৮

 

নির্বাচনের আগে সংসদ ভেঙে দিয়ে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করতে হবে

সরকারকে স্বচ্ছ মন নিয়ে আলোচনায় বসার আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, শুন্য টেবিলে তো আর আলোচনা হয় না। আলোচনার জন্য সুনির্দিষ্ট বিষয়বস্তু থাকতে হবে। অংশগ্রহণমূলক ও সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য ইতিমধ্যে বিরোধী দলগুলোর পক্ষ থেকে প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। সেসব বিষয়ে আলোচনা হতে পারে। তারা যদি এটা না চায় তাহলে বুঝতে হবে তাদের মন স্বচ্ছ না। তাদের মন সাদা নয়, অফ হোয়াইট (ধূসর)। শর্তছাড়া রাজি হলে বিএনপির সঙ্গে আলোচনা হতে পারে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এমন বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় শনিবার সকালে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কর্যালয়েআরও পড়ুন


মন্ত্রীদের ‘হোমওয়ার্ক’ করার পরামর্শ দিলেন কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সময়টা ভালো নয়। আমি আমাদের নেতৃবৃন্দের কাছে, আমার সহকর্মীদের কাছে বিনীত অনুরোধ করব, যার যার সীমানা পেরিয়ে দায়িত্বজ্ঞানহীন বক্তব্য দেবেন না। সরকারকে বিব্রত করে- এমন বক্তব্য কেউ দেবেন না। দল, সরকার বিব্রত হয় এমন কোনো কথা দয়া করে কেউ বলবেন না। সহকর্মীদের ‘হোমওয়ার্ক’ করার পরামর্শ দিয়ে কাদের বলেন, পলিসির ব্যাপারে নেত্রীর সঙ্গে আলাপ করে কথা বলবেন, ফ্রিস্টাইল কথা বলা যাবে না। শনিবার সকালে ধানমণ্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু ভবনের সামনে স্বেচ্ছাসেবক লীগের শোক দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথাআরও পড়ুন


প্রধান নির্বাচন কমিশনারের বক্তব্যে হতাশ অন্যরা

নির্বাচন কমিশনারদের মধ্যে টানাপোড়েন ক্রমশ প্রকাশ্যে চলে আসছে। বিভিন্ন ইস্যুতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) এবং অন্য কমিশনাররা পাল্টাপাল্টি বক্তব্য দিচ্ছেন। নির্বাচন কমিশনের (ইসির) ঘরোয়া বৈঠক বা প্রকাশ্য সভাতেই এ ধরনের বক্তব্য উঠে আসছে। প্রধান নির্বাচন কমিশনারের বক্তব্যের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করছেন এক বা একাধিক কমিশনার। আবার কমিশনারের বক্তব্যের সঙ্গে ভিন্ন মত পোষণ করছে সিইসি। নির্বাচনসংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেয়াসহ নানা বিষয়ে নিজেদের মধ্যে দেখা দিচ্ছে মতবিরোধ। সবাই একমত হয়ে অংশীজনদের সুপারিশগুলো বাস্তবায়ন করছেন না। এ বিষয়গুলো সাধারণ মানুষের মাঝে বিভ্রান্তি তৈরি হচ্ছে। এ নিয়ে সরকারের দুই মন্ত্রী বলেছেন সিইসির এভাবে কথাআরও পড়ুন


সিলেটে আরিফুলের বাসার সামনে হামলা-গুলি, ছাত্রদল নেতা নিহত

সিলেটে ছাত্রদলের একপক্ষের ওপর অপর পক্ষের হামলা ও গুলি ছোড়ার ঘটনা ঘটেছে। এতে ফয়জুর রহমান রাজু নামে এক ছাত্রদল নেতা নিহত হয়েছেন। তিনি সিলেট মহানগর ছাত্রদলের সহ-প্রচার সম্পাদক। এ ছাড়া বেশ কজন আহত ও গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। শনিবার রাত সাড়ে ৯ টার দিকে নগরের কুমারপাড়ায় সিটি কর্পোরেশনের (সিসিক) নবনির্বাচিত মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর বাসার সামনে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় আরিফুল হক চৌধুরী ও বিএনপি নেতারা তার বাসায় অবস্থান করছিলেন। রাত সোয়া ১১টায় ওসমানী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান রাজু। সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. দেবব্রত রায় জানান, আহতদেরআরও পড়ুন


সিলেটে চলছে আরিফ-কামরানের ভাগ্য নির্ধারণী ভোট

সিলেট ব্যুরোঃ সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদের ফল আটকে থাকা স্থগিত দুই কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ চলছে। শনিবার সকাল ৮টার দিকে ভোট গ্রহণ শুরু হয়, একটানা চলবে বিকাল ৪টা পর্যন্ত। এদিকে ওই দুই কেন্দ্র ছাড়াও ভোটের ফল সমান হয়ে যাওয়ায় সংরক্ষিত ৭ নম্বর (১৯, ২০ ও ২১) ওয়ার্ডের ১৪টি কেন্দ্রে সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদেও পুনঃভোট শুরু হয়েছে। এই ১৬ কেন্দ্রে প্রায় ৩৯ হাজার ভোটার থাকলেও ৩০ জুলাই পরবর্তী নির্বাচনী এলাকায় প্রচার-প্রচারণায় তেমন উত্তাপ ছিল না। সকাল থেকে অনেকটা নিয়ম রক্ষার নির্বাচন হচ্ছে মেয়র পদের ২৪নং ওয়ার্ডের গাজী বুরহানউদ্দিন গরম দেওয়ানআরও পড়ুন