Main Menu

রবিবার, সেপ্টেম্বর ১০th, ২০১৭

 

ইউরোপে ৯৩ হাজার অবৈধ বাংলাদেশির পরিসংখ্যান ভিত্তিহীন: আয়েবা

প্রবাস ডেস্কঃ  ইউরোপে ৯৩ হাজার আনডকুমেন্টেড (কথিত অবৈধ) বাংলাদেশি বসবাস করছে, প্রদত্ত এমন পরিসংখ্যানকে অবান্তর ও ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দিয়েছে অল ইউরোপিয়ান বাংলাদেশ এসোসিয়েশন (আয়েবা)। প্যারিসে সংস্থাটির সদর দফতরে ৬ সেপ্টেম্বর আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি করা হয়। এসময় আয়েবার নেতারা কথিত অবৈধ বাংলাদেশি ইস্যুতে কোনো প্রকার আতংক সৃষ্টি না করার জন্য সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানান। আয়েবা নেতারা বলেন, ৯৩ হাজারের যেসব পরিসংখ্যান ফলাও করে প্রচার করা হয়েছে, তার কোনো গ্রহণযোগ্য ভিত্তি নেই। মূলতঃ এসব বাংলাদেশিদের অধিকাংশ ইতিমধ্যে বিভিন্ন দেশের বৈধতার কাগজপত্র হাতে পেয়েছেন অথবা পাবার প্রক্রিয়ায় রয়েছেন।আরও পড়ুন


ঘূর্ণিঝড় ইরমা ধেয়ে যাচ্ছে ফ্লোরিডায়

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ  ঘূর্ণিঝড় ইরমা ধেয়ে যাচ্ছে ফ্লোরিডার দিকে। স্থানীয় সময় গতকাল শনিবার থেকে সেখানে ঝোড়ো বাতাস বইছে ও বৃষ্টি হচ্ছে। সিএনএনের খবরে জানা যায়, যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যে বাতাসের গতিবেগ ঘণ্টায় ১২০ মাইল। জাতীয় ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্র বলছে, কিউবার উত্তর উপকূল থেকে ঘূর্ণিঝড় ফ্লোরিডার দিকে ধেয়ে যাচ্ছে। এটি আরও শক্তিশালী হয়ে আঘাত হানতে পারে।


আগামী নির্বাচন অবশ্যই নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে হতে হবে-বিএনপি

স্টাফ রিপোর্টারঃ আগামী নির্বাচন হবে অবশ্যই সহায়ক সরকারের অধীনে, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে, সেই নির্বাচন অবশ্যই সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য হতে হবে।বিএনপি রাজপথে নামলে আওয়ামী লীগের অস্তিত্ব থাকবে না বলে হুশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। শনিবার বিকালে ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশনে বিএনপির ৩৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনা সভায় অংশ নিয়ে তিনি একথা বলেন। সভাপতির বক্তব্যে ফখরুল বলেন, আজকে সরকার শৃঙ্খলিত। এজন্য রোহিঙ্গা ইস্যুতেও কোনো সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারে না। আমরা চাই, দেশের মানুষ চায় দ্রুত রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান হোক। এ মানুষগুলোকে আশ্রয় দেয়া হোক, তাদেরকে খাদ্য দেয়া হোক, তাদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করাআরও পড়ুন


টেকনাফ ও উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নেমে এসেছে মানবিক বিপর্যয়

স্টাফ রিপোর্টারঃ ৬৫ কিলোমিটার পথ মাকে পিটে করে নিয়ে এসেছেন বাংলাদেশে। মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বন্দুকের নল বা বর্বরতার হাত থেকে বাঁচলেও সীমান্ত পেরিয়ে পড়েছেন সীমাহীন দুর্ভোগে। মাকে পিঠে করে নিয়ে আসায় অন্য কোন মালামাল সঙ্গে নিয়ে আসতে পারেননি। খাবার ও পানির অভাবে নিজের প্রাণশক্তি কমে আসলেও সেদিকে খেয়াল নেই। এখন আহার যোগিয়ে বা চিকিৎসা দিয়ে মাকে বাঁচিয়ে রাখাই তার জন্য চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ইজ্জত-আব্রæ বাঁচিয়ে একটু নিরাপদে মাথা গোঁজার ব্যবস্থা এখনো করতে পারেননি। এ সমস্যা শুধু জাফর আলমের একার নয়, মিয়ানমার থেকে প্রাণে বেঁচে আসা কয়েক লাখ রোহিঙ্গা মুসলমানের। মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীরআরও পড়ুন