Main Menu

বুধবার, ডিসেম্বর ৭th, ২০১৬

 

মুখে দুর্গন্ধ

মুখে দুর্গন্ধ অত্যন্ত বিড়ম্বনাকর অনুভূতি যার কারণে একজন মানুষের অন্য মানুষের সাথে আন্তঃযোগাযোগ সংযোগ স্থাপনের ক্ষেত্রেও বিরূপ পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হয়। মুখের দুর্গন্ধ মুখের অভ্যন্তরে কিছু রোগ ছাড়াও শরীরের অন্যান্য রোগের লক্ষণ হিসাবে দেখা দেয়। রোগ বা সমস্যায় মুখের অভ্যন্তরে যেসব কারণে দুর্গন্ধ হতে পারে সেগুলো হলো :(ক) মাড়ি রোগ-একিউট নেকরোটাইজিং আলসারেটিভ জিনজিভাইটিস বা পচনশীল ঘাযুক্ত মাড়ির প্রদাহ। (খ) পেরিওডন্টাল রোগ : এ রোগে অসংখ্য অ্যানোরবিক ব্যাকটেরিয়া মুখে দুর্গন্ধের সৃষ্টি করে থাকে। (গ) মুখের অভ্যন্তরে কৃত্রিম দঁাঁত যদি একরাইলিক জাতীয় হয়ে থাকে। শুধু তাই নয় যদি কৃত্রিম দাঁতের সঠিকভাবে যতœআরও পড়ুন


ইসি গঠনে খালেদা জিয়ার প্রস্তাবাবলী এখন বঙ্গভবনে

স্টাফ রিপোর্টার : প্রেসিডেন্টের সাক্ষাতের জন্য ১৩ দিন অপেক্ষা শেষে মঙ্গলবার সকালে ‘নির্বাচন কমিশন গঠন ও শক্তিশালীকরণ : বিএনপির প্রস্তাবাবলী প্রেসিডেন্ট ভবন বঙ্গভবনে পৌঁছিয়ে দিয়েছেন বিএনপির একটি প্রতিনিধিদল। দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী ও ভাইস-চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) রুহুল আলম চৌধুরীর নেতৃত্বে এই প্রতিনিধিদলটি প্রেসিডেন্টের সহকারী সামরিক সচিব ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মাইনুর রহমানের সাথে সাক্ষাৎ করে এই প্রস্তাবাবলী দেন। গতকাল সকাল ১১টা ১০ মিনিটে বিএনপির প্রতিনিধি দলটির গাড়ি বঙ্গভবনের ভেতরে প্রবেশ করে, বেরিয়ে আসে ১১টা ২৫ মিনিটে। এর আগে প্রেসিডেন্ট আব্দুল হামিদ চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরের উদ্দেশ্যে বঙ্গবভবন ত্যাগ করেনআরও পড়ুন


মিয়ানমার জান্তা ও সন্ত্রাসী বৌদ্ধদের বর্বরতার বিষয়ে জাতিসংঘের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ- চরমোনাই পীর সাহেব

স্টাফ রিপোর্টার : রোহিঙ্গা মুসলিম গণহত্যা ও বর্বতা বন্ধের দাবিতে গতকাল ইসলামী আন্দোলন বিক্ষোভ সমাবেশ মিছিল এবং মিয়ানমার দূতাবাসে স্মারকলিপি পেশ কর্মসূচি পালন করেছে। এছাড়া মোহাম্মদপুরস্থ ইত্তেফাকুল মাদারিসিল কওমিয়ার উদ্যোগে গতকাল বিকেলে মোহাম্মদপুর এলাকায় বিশাল বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। বিক্ষোভ সমাবেশে বলা হয় রোহিঙ্গা মসুলিম গণহত্যা ও বর্বরতা বন্ধে অবরোধ সামরিক হস্তক্ষেপসহ যা যা দরকার তাই করতে হবে। সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেন, মিয়ানমারে গণহত্যা বর্বরতা ও জাতিগত নির্মূলে মিয়ানমার জান্তা ও সন্ত্রাসী বৌদ্ধদের বর্বরতার বিষয়ে জাতিসংঘের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মিয়ানমারে গণহত্যা, নারী ধর্ষণ, শিশু হত্যা,আরও পড়ুন


প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী শাকিলের অস্বাভাবিক মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার : প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী মাহবুবুল হক শাকিল আর নেই। গতকাল রাজধানীর গুলশানে একটি হোটেলে মৃত্যবরণ করেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৪৮ বছর। তিনি স্ত্রী, এক কন্যা এবং বাবা-মাসহ বহু আত্মীয়-স্বজন রেখে গেছেন। তাঁর এ অস্বাভাবিক মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, পরিবার সদস্য এবং  তার রাজনৈতিক সহকর্মী, বন্ধুদের মাঝে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। গতকাল দুপুরে গুলশান-২ এ ৩৫ রোডের ২৭ নম্বর বাড়ির সামদাদো রেস্টুরেন্টের দ্বিতীয় তলার একটি কক্ষ থেকে পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করেছে। পুলিশ বলছে, লাশ উদ্ধার করে রাতে বারডেম হাসপাতালে নেয়া হয়। তবেআরও পড়ুন


পৃথিবীর ইতিহাসের স্বৈরিণী নারীদের মতো সুচিকেও ঘৃণা ও নিন্দার মালায় নিগৃহীত হতে হবে

দ্বন্দ্বমুখর পৃথিবী যতই উগ্র ও উত্তপ্ত হোক না কেন, মানুষ আসলে শান্তি, স্থিতি ও নিরাপত্তা চায়। যদিও কতিপয় মাথামোটা ও রগচটা নেতার কারণে দ্বন্দ্ব-সংঘাত-যুদ্ধ লেগে যায়, তথাপি সাধারণ মানুষ শান্তিরই পক্ষে। এ কারণেই হিটলার বা স্ট্যালিন প্রমুখ উগ্রদের মানুষ শ্রদ্ধার বদলে ঘৃণাই করে। এখনো যারা যুদ্ধবাজ ও হিং¯্র বলে পরিচিত, তাদেরকে নিন্দা জানায়। কারণ, দ্বন্দ্ব-সংঘাত-যুদ্ধে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয় সাধারণ মানুষের। যুদ্ধবাজ নেতারা মানুষকে রক্ত ও মৃত্যুর মধ্যে ফেলে দিয়ে  লম্ফঝম্প করলেও সাধারণ মানুষকে বিপদ থেকে বাঁচাতে পারে না। ফলে সাধারণ মানুষ উগ্র, যুদ্ধবাজকে সন্দেহ ও ঘৃণা করে। পাকিস্তান ওআরও পড়ুন