Main Menu

রবিবার, সেপ্টেম্বর ৪th, ২০১৬

 

আইভির কর্মকাণ্ড দেখতে নারায়ণগঞ্জ গেলেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত

স্টাফ রিপোর্টার, নারায়ণগঞ্জ : বাংলাদেশের জঙ্গিবাদ সম্পূর্ণ নির্মূল হয়ে গেছে ভাবলে চলবে না বলে মন্তব্য করেছেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শিয়া ব্লুম বার্নিকাট। শনিবার সকালে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াত আইভীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের তিনি একথা বলেন। মার্কিন রাষ্ট্রদূত বলেন, এদেশের পুলিশ অন্য দেশের তুলনায় দক্ষতা, ধৈর্য, কঠোর পরিশ্রম ও সাহসিকতার সঙ্গে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ মোকাবেলা করছে। কাজটি অনেক কঠিন। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী আমাদের সব ব্যাপারে সহযোগিতা করছে। বিষয়গুলো আমরা গুরুত্ব সহকারে দেখছি। তবে জঙ্গিবাদ সন্ত্রাসবাদের ব্যাপারে সবাইকে সজাগ থাকতে হবে, সতর্ক থাকতে হবে। কারণ এটা মনে করা উচিত নাআরও পড়ুন


মাইক্রোস্কোপ দিয়েও দেশে জঙ্গি খুঁজে পাওয়া যাবে না- স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

জঙ্গি ও সন্ত্রাস দমনে আজকে সব ধর্মের মানুষ একই সুরে কথা বলছে। কাজেই এখানে স্পষ্ট এবং পরিষ্কার আমাদেরকে কেউ কোনো কিছু করতে পারবে না ইনশাল্লাহ। গতকাল শনিবার দুপুরে ঢাকা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদ সমাবেশে এসব কথা বলেন স্বারাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজজামান খান কামল। তিনি বলেন, এই মুহূর্তে আমাদের দেশে কোনো ধরনের জঙ্গি নেই। আপনারা যদি মাইক্রোস্কোপ দিয়ে দেখেন তাহলেও আপনারা খুঁজে পাবেন না। তারপরেও দুই চার জন যা আছে তারা যদি আত্মসমর্পণ না করে তাহলে তাদের পরিণতি যা হবার তাই হবে। তিনি মিরপুরের পল্লবীতে জঙ্গি আস্তানায় হামলা প্রসঙ্গে বলেন, গত শুক্রবারআরও পড়ুন


আমি চুমু খেতে পারব না- সোনাক্ষী

বলিউডে এখন যেসব সিনেমা তৈরি হচ্ছে তার অধিকাংশগুলোতেই কিছু ঘনিষ্ঠ দৃশ্য বা নায়ক-নায়িকার লিপ লকের দৃশ্য রয়েছেবলিউডের অনেক বড় বড় নায়িকাও এ ধরনের দৃশ্যে অভিনয় করেছেন। কিন্তু তিনি এখনও পর্যন্ত লিপ লকের দৃশ্যে অভিনয় করেননি।তিনি বলিউডের দাবাংখ্যাত নায়িকা সোনাক্ষী সিনহা। ভবিষ্যতেও এ ধরনের চরিত্রে অভিনয় করবেন না বলে জানিয়েছেন তিনি। সোনাক্ষী সিনহা বলেন, ‘যেহেতু আমি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করি না, তাই কোনোদিনই পর্দায় চুমু খেতে পারব না। এটা আমার একটা নিজস্ব নীতি বলতে পারেন। যেটা আমি সব সময় মেনে চলি। প্রসঙ্গত, শুক্রবার সোনাক্ষী অভিনীত সিনেমা ‘আকিরা’ মুক্তি পেয়েছে। সিনেমায় দুর্দান্ত সবআরও পড়ুন


এক নজরে মীর কাসেম আলী

একজন সফল উদ্যোক্তা, সমাজসেবক, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব মীর কাসেম আলী। সৃজনশীল উদ্যমী মানুষের প্রতিচ্ছবি মীর কাসেম আলী। নিজ হাতে গড়ে তুলেছেন আর্থিক প্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, দাতব্য প্রতিষ্ঠান, মিডিয়া। সাহিত্য-সাংস্কৃতিক অঙ্গনে ছড়িয়েছেন আলোর দ্যুতি। পাশে দাঁড়িয়েছেন অসহায়, দরিদ্র মানুষের । কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দিয়েছেন হাজার হাজার বেকার মানুষের। তিনি আজ নেই। কিন্তু রয়েছে তার বিপুল কর্ম, তার গড়া প্রতিষ্ঠান। দেশের জন্য, দেশের মানুষের জন্য সেবা দিয়ে যাবে বহুকাল ধরে। ব্যক্তি পরিচয়: মীর কাসেম আলী ১৯৫২ সালের ৩১ ডিসেম্বর মানিকগঞ্জ জেলার হরিরামপুর থানার সূতালরী গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন। তার বাবা মীর তৈয়বআরও পড়ুন


জামায়াত নেতা মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদন্ড কার্যকর

নিজস্ব প্রতিনিধি : বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদ- কার্যকর করা হয়েছে। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। গতকাল শনিবার দিবাগত রাত ১০টা ৩০ মিনিটে গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার পার্ট-২ এ ফাঁসিতে ঝুলিয়ে তার মৃত্যুদ- কার্যকর করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এ কে এম শহীদুল হক। পরে ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি মাহফুজুল হক নুরুজ্জামানও কারাগার থেকে বের হয়ে সাংবাদিকদের বলেন, রাত সাড়ে দশটার পর ফাঁসি কার্যকর করা হয়। ২০ মিনিট তাকে ফাঁসির মঞ্চে ঝুলিয়ে রাখা হয়। কাশিমপুর কারাগার-২ সূত্র জানায়, শনিবার দুপুরের পর কারাগারের ভেতরে মঞ্চে চূড়ান্তআরও পড়ুন