Main Menu

যশোরে মসজিদ নির্মাণে মহৎ উদ্যোগ, লালমনিরহাটে একই আঙিনায় মসজিদ-মন্দির


মৃত পিতার স্বপ্ন পূরণ করতে মসজিদের নির্মাণকাজে তিন বছর পান বিক্রির টাকা সঞ্চয় ও স্ত্রীর গহনা বিক্রি করে ৮ লাখ টাকা দান করে এলাকাবাসীর কাছে শ্রদ্ধার পাত্র হয়েছেন যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার শংকরপুর ইউনিয়নের পান ব্যবসায়ী ইউনুস আলী গাজী। ইউনুস আলী গাজীর এই মহৎ উদ্যোগে খুশি তার পরিবারের সদস্যসহ প্রতিবেশী স্বজনেরা।

মসজিদ কমিটির সভাপতি মোহাম্মাদ আলী জানান, এখানে একটি পুকুর ছিল স্থানীয় লোকজনের উদ্যোগে মাটি ভরাট করে মসজিদ নির্মাণ করা হয়। মসজিদের ছাদ ঢালাইয়ের জন্য ৮ লাখ টাকা ব্যয়ভার ইউনুস আলী গাজী ও তার পরিবার গ্রহণ করেছেন। তার বাবা ও পরিবারের মৃত ব্যাক্তিদের রুহের মাগফেরাতের জন্য এই অনুদান তিনি দিয়েছেন।

সোমবার (১১ অক্টোবর) সকালে ইউনুস আলীর হাত দিয়েই ছাদের ঢালাইয়ের কাজ উদ্বোধন করা হয়। সন্ধ্যায় শেষ হয় চার হাজার স্কয়ার ফিটের পুরা ছাদ ঢালাইয়ের কাজ।

৮ লাখ টাকা ব্যয়ে মসজিদের ছাদ করে দিলেন পান বিক্রেতা ইউনুস আলী গাজী

একই আঙিনায় মসজিদ-মন্দির

ওদিকে, লালমনিরহাট শহরের আঙ্গিনায় নির্মিত পুরান বাজার জামে মসজিদ সংলগ্ন কালীবাড়ী কেন্দ্রীয় মন্দিরে শারদীয় দুর্গোৎসব আয়োজন করে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির উদাহরণ সৃষ্টি করেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

একই আঙিনায় মসজিদ ও মন্দির দেখতে গত সোমবার সন্ধ্যায় দুর্গাপুজা উপলক্ষয়ে এখানের আসেন ঢাকাস্থ নেপাল দূতাবাসের ডেপুটি চিফ অব মিশন (উপপ্রধান মিশন) মি. কুমার রাই ও রংপুর রেঞ্জের ডিআইজি দেবদাস ভট্টাচার্য্য।

পুরান বাজার জামে মসজিদের ইমাম মোহাম্মদ আলাউদ্দিন বলেন, এখানে একসঙ্গে মসজিদ ও মন্দির- এ দু’টি প্রতিষ্ঠান পাশাপাশি অবস্থান করছে প্রায় দুশ বছর ধরে।  মসজিদের আগে মন্দিরটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। আমরা তাদের সব কাজে সহযোগিতা করি। তারাও আমাদের সহযোগিতা করেন। নামাজের সময় মন্দিরের ঢাক-ঢোল বন্ধ রাখা হয়। কোনো বিশৃঙ্খলা ছাড়াই যুগ যুগ ধরে চলছে এ সম্প্রীতির বন্ধন।’

কেন্দ্রীয় কালীবাড়ী মন্দিরের সভাপতি ও প্রধান পুরোহিত শংকর চক্রবর্তী জানান, ১৮৩৬ সালে কালী মন্দিরটি প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর এলাকার নামকরণও করা হয় কালীবাড়ী। পরে এখানে বাজার গড়ে উঠলে বাজারের ব্যবসায়ী ও শহরের ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা মন্দিরের পাশেই প্রতিষ্ঠা করেন পুরান বাজার জামে মসজিদ। সেই থেকে এক উঠানে চলছে দুই ধর্মের দুই উপাসনালয়ের কার্যক্রম। সামান্য বিশৃঙ্খলাও হয় না এখানে। জন্মের পর থেকে এভাবে চলতে দেখছেন তিনি।

এ ব্যাপারে লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক আবু জাফর বলেন, ‘এখানকার মানুষ সব ধর্মের মানুষের সহাবস্থানে বিশ্বাস করেন। যার প্রমাণ এক উঠানে কেন্দ্রীয় কালীবাড়ী মন্দির ও পুরান বাজার জামে মসজিদ।’#

পার্সটুডে/আবদুর রহমান খান/আশরাফুর রহমান/১৩

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন। 

 






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: